• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ১১ জুন, ২০২০
সর্বশেষ আপডেট : ১১ জুন, ২০২০

শিশুটিকে পাগল বানানোর পায়তারা সৎ মায়ের

অনলাইন ডেস্ক

বগুড়া শেরপুরে সৎ মা চুরির অযুহাত দেখিয়ে হাত, পা শিকল দিয়ে বেঁধে ৭দিন ধরে বাড়ীর আঙ্গীনায় শিকল বন্ধি জীবন কাটছে শিশু জুয়েল শেখের। গত ১০ জুন বুধবার রাত্রিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হস্থক্ষেপে শিকলবন্দি জীবন থেকে মুক্তি পায় জুয়েল। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বগুড়া শেরপুর উপজেলার ১নং কুসুম্বী ইউনিয়নের বাগড়া কলোনী গ্রামের দিনমজুর মাহবুব শেখের ছেলে জুয়েল শেখ (১২) কে হাত, পা শিকল দিয়ে বেঁধে রেখেছে সৎ মা মমতা বেগম।

শিকল বন্দি শিশু জুয়েল সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সে লেখাপাড়া করত কিন্তু বাবার অভাবের সংসার হওয়ায় লেখাপড়া ছেড়ে হোটেল ও ফার্নিচারের দোকানে কাজ করত। শিশু জুয়েলের বাবা ঢাকায় দিনমজুরের কাজ করেন তিনি ঢাকাতেই থাকেন। দোকান মালিকের কাছে তার চাহিদা মত টাকা না দেওয়া কিছু টাকা চুরি করে। এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে সৎ মা মমতা বেগম চুরি অযুহাতে শিশু জুয়েলকে হাত,পা শিকল দিয়ে বেধে বাড়ীর আঙ্গীনায় রাখেন। বাগড়া কলোনির এলাকার ব্যবসায়ী জুয়েল ও ইব্রাহীমসহ আরো অনেকের সাথে কথা বলে জানা যায়, শিকল দিয়ে হাত ও পা বেধে রাখা সত্যিই দুঃখজনক ঘটনা। শিশু জুয়েল গরীব দরিদ্র পরিবারের সন্তান আমাদের জানা মতে সে একজন ভালো ছেলে তাকে বুঝিয়ে বললেই সে শুনবে সবকিছু এবং আপনারা নিজেও কথা বলে দেখেছেন ছেলেটি ভালোভাবেই উত্তর দিচ্ছে। তার সৎ মা শিশু জুয়েলকে ঠিকমতো যত্নবান করেন না। চুরির অযুহাতে তাকে শিকল বন্দি করে পাগল বানানোর চেস্টা করছে। এছাড়াও এলাকার সচেতন মহল বলেন সৎ মা মমতা বেগম অমানবিক কাজ করছে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিয়াকত আলী সেখ বলেন, এটা খুবই কষ্টদায়ক। আমি যখন জানতে পেরেছি সঙ্গে সঙ্গে মুক্তি করার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করে শিশুটিকে শিকল থেকে মুক্ত করা হয়েছে।

আরও পড়ুন