• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১২ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ২ নভেম্বর, ২০২০
সর্বশেষ আপডেট : ২ নভেম্বর, ২০২০

সাভারে যৌতুকের জন্য নির্যাতন, গৃহবধূর আত্মহত্যা

অনলাইন ডেস্ক

সাভারে যৌতুকের টাকার জন্য শ্বশুরবাড়ির নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে রাবেয়া আক্তার (১৯) নামে এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। খবর পেয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকার সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ।

এ ঘটনায় সাভার মডেল থানায় আত্মহত্যা ও প্ররোচনার অভিযোগে নিহত গৃহবধূর স্বামী মো. সোহানুর রহমান (২০), নিহতের শাশুড়ি শিল্পী বেগম (৩৮) ও শ্বশুর মো. স্বপন মিয়াকে (৪৭) আসামি করে মামলা করেন নিহতের পিতা মো. রবিউল আলম।

গতকাল রবিবার দুপুরে এ ঘটনায় আটক গৃহবধূর শাশুড়ি শিল্পী বেগমকে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। এছাড়া ঘটনার পর থেকেই পলাতক রয়েছেন মামলার অন্য আসামিরা।
এর আগে শনিবার রাতে সাভারের হেমায়েতপুর জয়নাবাড়ি এলাকায় হাজী আলাউদ্দিনের বাড়ি থেকে নিহতের মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ।

মামলার এজাহারে বলা হয়, গত একবছর আগে সাভার পৌর এলাকার শাহীবাগ মহল্লার বাসিন্দা রবিউল আলমের মেয়ে মোসা. রাবেয়া আক্তারের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠলে পরিবারের অজান্তে বিয়ে করেন হেমায়েতপুর জয়নাবাড়ি এলাকার মো. স্বপন মিয়ার ছেলে মো. সোহানুর রহমান। বিয়ের পর থেকেই মা-বাবার প্ররোচনায় স্ত্রী রাবেয়ার কাছে ১০ লক্ষ টাকার যৌতুক দাবি করে আসছিল স্বামী সোহানুর।

যৌতুকের টাকা না পেয়ে বিভিন্ন সময় ওই গৃহবধূকে নির্যাতনসহ নানাভাবে চাপ সৃষ্টি ও যৌতুকের টাকা দিতে পারলে আত্মহত্যার প্ররোচনা দিয়ে আসছিল আসামিরা। এ ঘটনায় এক মাস আগে স্বামীর পরিবারের সাথে ওই গৃহবধূর পরিবার আলোচনা করলে তাদের দাবিকৃত ১০ লক্ষ টাকা দিতে না পারলে স্ত্রীকে তালাক দেয়া হবে বলে জানিয়ে দেয় স্বামী সোহানুর।

পরে রবিবার গৃহবধূ রাবেয়া আড়ার সাথে গলায় ওড়না ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে রাবেয়ার পরিবারকে জানায় স্বামী সোহানুর।

সাভার মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুজন শিকদার বলেন, গৃহবধূ আত্মহত্যার ঘটনায় মামলা দায়েরের পর আসামি শিল্পী বেগমকে গ্রেফতার করে দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়েছে। গৃহবধূর স্বামীসহ মামলার অন্য আসামিদের ধরতে অভিযান চলছে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন

  • এক্সক্লুসিভ এর আরও খবর