• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ২৩ জুন, ২০২১
সর্বশেষ আপডেট : ২৩ জুন, ২০২১

ইভ্যালির ‘লাপাত্তা শঙ্কা’ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের : কামাল শাহরিয়ার

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রতিবেদনের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে চলছে ই ভ্যালির বর্তমান ভবিষ্যৎ নিয়ে নানা আলোচনা সমালোচনা। ই ভ্যালি নিয়ে সাংবাদিক কামাল শাহরিয়ার এর ফেসবুক থেকে তার লেখাটি আজ বাংলা’র পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল:-

কামাল শাহরিয়ার
গ্রাহক হয়রানি, সময়মতো পণ্য ডেলিভারি না দেয়া, রিফান্ড পেতে একজন গ্রাহককে যে মানসিক যন্ত্রণা পেতে হয় তা পুরোনো অভিযোগ। সেই চিত্র থেকে এখনো বের হতে পারেনি Evaly.com.bd
কিছুদিন আগে বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি এক অনুষ্ঠানে ভার্চুয়াল ভাষণে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান নিয়ে অনেক অভিযোগ তুলে ধরেন। বলেছিলেন, ই-কমার্সে প্রতারণা বন্ধে কঠোর মনিটরিং করতে হবে। ওই অনুষ্ঠানে ইভ্যালির
সিইও মোহাম্মদ রাসেল নিজেও উপস্থিত ছিলেন।
সম্প্রতি সরকারের মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী সরাসরি বলেছেন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলো যেভাবে অফার দিচ্ছে। তাতে তাদের টিকে থাকার সম্ভাবনা খুব কম। পালানোর শংকা বেশি। এরপরও নানা নামে অফার দিয়ে ক্রেতা বা গ্রাহক সংগ্রহে ব্যস্ত ইভ্যালি।
তবে বাংলাদেশের ব্যাংকের প্রতিবেদন ভয়াবহতার ইঙ্গিত দিচ্ছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে দেয়া ওই রিপোর্টে দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলছে, সম্পদের চেয়ে ৬ গুণের বেশি দেনা কোম্পানিটির পরিশোধ করার সক্ষমতা নেই। কোম্পানিটি চলতি দায় ও লোকসানের দুষ্ট চক্রে বাঁধা পড়েছে উল্লেখ করে বাংলাদেশ ব্যাংক আরও বলছে, ‘ক্রমাগতভাবে সৃষ্ট দায় নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির অস্তিত্ব টিকে না থাকার ঝূঁকি তৈরি হচ্ছে।’ এখন এ বিষয়ে ব্যাখ্যা কিংবা নিজেদের বক্তব্য নিশ্চয়ই দেবে ইভ্যালি।
আমি নিজেও কয়েকটি পণ্য কিনেছি Evaly থেকে। তারপরও সবসময় শঙ্কা প্রকাশ করে যাচ্ছি। আশপাশের, কাছের মানুষদের বলছি, ইভ্যালি কবে যেন লাপাত্তা হয়। এখন প্রশ্ন হলো, সরকারের মন্ত্রী, বাংলাদেশ ব্যাংক এমন আশঙ্কার কথা জানানোর পরও কী আমরা ইভ্যালির ফাঁদে পা দেব? এরপর যদি প্রতিষ্ঠানটি লাপাত্তা হয় তাহলে দায় কার? আমাদের ওপরই থাকবে।
তবে আশাকরি বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনের পর সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ইভ্যালির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে- যাতে গ্রাহকের টাকা কোনোভাবেই বেহাত না হয়। দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে দিনশেষে অসচেতন মানুষ সরকারকেই দোষ দেবে।
একজন অভিনেত্রীকেও সম্প্রতি বড় একটি পদে বসানো হয়েছে। ইভ্যালিকে নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের এমন প্রতিবেদনের পর তিনি প্রতিষ্ঠানটি ছাড়বে কিনা সেটা দেখার অপেক্ষায়। এমনকি, সম্প্রতি এই প্রতিষ্ঠানের সাথে যারা যুক্ত হয়ে ব্রান্ড এম্বাসেডর হিসেবে- আশাকরি তারাও বিষয়টি ভাববেন। কারণ দেশ-বিদেশে তাদের শক্ত ও ভালো ইমেজ রয়েছে। প্রিয় মানুষগুলোর কাছে এটা একপ্রকার সবিনয় প্রত্যাশাও বলতে পারেন। কেননা, কয়েকদিন আগে আমাদের প্রিয় ম্যাশ কিন্তু একটা উদাহরণ সৃষ্টি করছেন।

আরও পড়ুন