• ঢাকা
  • রবিবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
সর্বশেষ আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১

সুইজারল্যান্ডে রোড শো করবে বিএসইসি

অনলাইন ডেস্ক

পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে এবার সুইজারল্যান্ডে দুই দিনব্যাপী ‘রোড শো‘ করতে যাচ্ছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দেশের পুঁজিবাজারের পরিধি এবং ইউরোপ প্রবাসী ও বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করার জন্য এই উদ্যোগ নিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। এর আগে দুবাই ও যুক্তরাষ্ট্রে রোড শো করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

দুই দিনব্যাপী এবারের রোড শো অনুষ্ঠিত হবে সুইজারল্যান্ডের জুরিখে ও জেনেভায়। এর মধ্যে জুরিখে রোড শো হবে ২০ সেপ্টেম্বর এবং জেনেভায় রোড শো হবে ২২ সেপ্টেম্বর। রোড শোতে সুইজারল্যান্ডে বিভিন্ন প্রাতিষ্ঠানিক ও ব্যক্তি বিনিয়োগকারী এবং স্টেকহোল্ডারদের কাছে পুঁজিবাজারসহ সার্বিক অর্থনীতির বর্তমান পরিস্থিতি, বিনিয়োগ সুযোগ-সুবিধা এবং বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হবে।

এবারের আয়োজনে দেশের পুঁজিবাজারে বিনিয়োগে আগ্রহী করে তুলতে কিছু বিশেষ প্রদর্শনীর আয়োজন করা হবে। পুঁজিবাজারে সরাসরি বিনিয়োগের কৌশল ও সার্বিক নিরাপত্তার বিষয় তুলে ধরা হবে। দেশের পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের উপযুক্ত স্থান হিসেবে চিহ্নিত করার জন্য বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন দেশ ও শহরগুলোতে ধারাবাহিক রোড শো করার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

এবারের রোড শোতে বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের নেতৃত্বে অংশ নেবেন কমিশনার অধ্যাপক ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ, নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ সাইফুর রহমান ও মো. মাহবুবুল আলম, পরিচালক মাহমুদুল হক ও উপ-পরিচালক মোহাম্মদ রাশিদুল আলম।

এরপর লন্ডন, রোম, টরন্টো, হংকং, নিউইয়র্ক, সিঙ্গাপুর, টোকিও, মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন উন্নত শহরে রোড শোর আয়োজন করবে বিএসইসির।

জানা যায়, সুইজারল্যান্ডে এখন অনেক সম্পদশালী বাংলাদেশি বসবাস করছেন। কিন্তু তারা বিনিয়োগ করার মতো কোনো উপযুক্ত জায়গা খুঁজে পান না। যথাযথ পরামর্শ-সহায়তা দিলে প্রবাসীদের সুনিশ্চিত বিনিয়োগের পরিবেশ তৈরি হবে। তাদের সঞ্চিত অর্থ পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের মাধ্যমে দেশের শিল্পায়নে কাজে লাগানোর সুযোগ রয়েছে। সুইজারল্যান্ডে অবস্থানরত বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগের সুযোগ করে দিতে আরও ডিজিটাল বুথ চালু করা যেতে পারে। এতে প্রবাসী ও বিদেশি বিনিয়োগকারীরা সরাসরি পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ পাবেন।

উল্লেখ্য, সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে (সুইস ব্যাংক) কোনো কোনো বাংলাদেশি যেন ‘টাকার পাহাড়’ গড়ে তুলেছেন। দেশটির ব্যাংকে বাংলাদেশের সংসদ সদস্য, ব্যবসায়ী, রাজনৈতিক নেতা, ঠিকাদার, দুর্নীতিবাজ সরকারি কর্মকর্তারা টাকা জমিয়েছেন। সুইস ন্যাশনাল ব্যাংকের প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

২০২০ সালে প্রকাশিত প্রতিবদেন অনুসারে, সুইস ব্যাংকে ২০১৯ সালে বাংলাদেশিদের মোট সঞ্চয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬০ কোটি ৩০ লাখ ফ্র্যাংক। বাংলাদেশি মুদ্রায় ৫ হাজার ৪২৭ কোটি টাকা (প্রতি সুইস ফ্র্যাংক ৯০ টাকা হিসাবে), যা কমপক্ষে ১২টি বেসরকারি ব্যাংকের (দেশের) পরিশোধিত মূলধনের সমান।

২০১৮ সালে এ সঞ্চয় ছিল ৫ হাজার ৫৫৯ কোটি টাকা। অর্থাৎ আগের বছরের তুলনায় ১৩২ কোটি টাকা কমেছে। এ ক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারতের পরেই বাংলাদেশের অবস্থান।

আরও পড়ুন

  • অর্থনীতি এর আরও খবর