• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১২ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ১৯ নভেম্বর, ২০২১
সর্বশেষ আপডেট : ১৯ নভেম্বর, ২০২১

প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় জড়িত নয় বাংলাদেশ ব্যাংকের কেউ

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশ ব্যাংকের তত্ত্বাবধানে পাঁচটি সরকারি ব্যাংকে নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কোনো কর্মকর্তার সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পাওয়া যায়নি। একইসঙ্গে আহছানউল্লা বিশ্ববিদ্যালয়কে ভবিষ্যতে এ ধরনের পরীক্ষা পরিচালনার সুযোগ না দিতে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকারী মুখপাত্র জিএম আবুল কালাম আজাদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পাঁচটি ব্যাংকের ‘অফিসার (ক্যাশ)’ পদে নিয়োগ পরীক্ষা পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান ছিল আহছানউল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। এ পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ ওঠে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে বিএসসিএস ওই পরীক্ষা বাতিল করেছে। আহছানউল্লা বিশ্ববিদ্যালয় আরও দুটি পরীক্ষা পরিচালনার দায়িত্বে থাকায় তা ইতোমধ্যে স্থগিত করেছে বিএসসিএস।

আহছানউল্লা বিশ্ববিদ্যালয়কে ভবিষ্যতে এ ধরনের পরীক্ষা পরিচালনার সুযোগ না দেওয়ার জন্য কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। ওই পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে প্রাথমিকভাবে চিহ্নিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নিয়েছে এবং অধিকতর তদন্ত কার্যক্রম চলমান রয়েছে। প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের কোনো পর্যায়ের কোনো কর্মকর্তার সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, বাংলাদেশ ব্যাংকের জন্য ‘সিসিটিভি অপারেটর’ পদে ২০২০ সালের ১৬ অক্টোবর অনুষ্ঠিত লিখিত পরীক্ষায় অনিয়মের বিষয়ে অভিযোগ পাওয়ায় প্রাথমিকভাবে ব্যাংকের যুগ্ম পরিচালক আবদুল্লাহ আল মাবুদ এবং মো. আলমাস আলীকে চলতি বছরের ১৩ জুন সাময়িক বরখাস্ত করা হয় এবং অভিযোগের সার্বিক বিষয়টি এখনও তদন্তাধীন। তদন্ত কার্যক্রম সম্পন্ন হবার পর অভিযোগ প্রমাণিত হলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে যথাযথ প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলছে, বাংলাদেশ ব্যাংক বা সরকারি মালিকানাধীন ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর কোনো নিয়োগ পরীক্ষা পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান নির্বাচনের ক্ষেত্রে উন্মুক্ত প্রতিযোগিতামূলক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠান নির্বাচন করা হয়। এ জাতীয় সেবা ক্রয়/গ্রহণের ক্ষেত্রে প্রচলিত সব বিধি-বিধান স্বচ্ছতার সঙ্গে পরিপালন নিশ্চিত করেই বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালক পর্ষদের নির্বাহী কমিটির অনুমোদক্রমে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে নির্বাচিত প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ দেওয়া হয়। এ প্রক্রিয়ায় ব্যাংকের কোনো পর্যায়ের কোনো কর্মকর্তার প্রভাব বিস্তারের কোনো সুযোগ নেই। এক্ষেত্রে আহছানউল্লাকে কাজ পাইয়ে দেওয়ার ব্যাপারে পত্রিকায় যে সংবাদ পরিবেশিত হয়েছে তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হিউম্যান রিসোর্সেস ডিপার্টমেন্ট-১ বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়োগ সংক্রান্ত সব কার্যক্রম পরিচালনা করে। অপরদিকে বিএসসিএস শুধুমাত্র সরকারি মালিকানাধীন ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহের লোকবল নিয়োগের জন্য নিয়োগ সংক্রান্ত কার্যক্রম পরিচালনা করে। হিউম্যান রিসোর্সেস ডিপার্টমেন্ট-১ এবং বিএসসিএস দুটি আলাদা প্রশাসনিক ইউনিট, যা দুজন ভিন্ন ভিন্ন ডেপুটি গভর্নরের ওপর ন্যস্ত রয়েছে। সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রেও স্ব-স্ব অধিক্ষেত্রে তারা আলাদাভাবে কাজ করেন। তাই এ পর্যায়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের একে অপরের কাজে প্রভাবিত করার কোনো এখতিয়ার বা সুযোগ নেই। সুতরাং এ বিষয়ে পত্রিকায় যে সংবাদ পরিবেশিত হয়েছে, তা-ও সঠিক নয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়োগ, পদায়ন, পদোন্নতি এবং বহিঃকেন্দ্রে বদলির জন্য স্বচ্ছ, সুনির্দিষ্ট এবং সুস্পষ্ট বিধি-বিধান রয়েছে। বিধান মোতাবেক কেন্দ্র জ্যেষ্ঠতা বা আবেদনের ভিত্তিতে একজন কর্মকর্তাকে সাধারণত দুই বছরের জন্য বহিঃকেন্দ্রে বদলি বা বহাল করা হয়। সুতরাং ব্যাংকের বহিঃকেন্দ্রে পোস্টিং বা বহালের বিষয়টি কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নয়, বরং বাংলাদেশ ব্যাংক সৃষ্টিলগ্ন থেকে এটি একটি দাফতরিক রুটিন ওয়ার্ক।

বৈদেশিক মুদ্রার সঞ্চিত রিজার্ভ ব্যবস্থাপনার নীতিগত সিদ্ধান্তসমূহ গৃহীত ও নিয়ন্ত্রিত হয় বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ ম্যানেজমেন্ট গাইডলাইন্স ও উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ইনভেস্টমেন্ট কমিটির (আইসি) মাধ্যমে। অপারেশনাল বিষয় নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে রিজার্ভ ম্যানেজমেন্ট অপারেশনাল ম্যানুয়ালের নির্দেশনার আলোকে। রিজার্ভের বিনিয়োগ সংক্রান্ত সার্বিক কার্যক্রম দৈনিক ভিত্তিতে অডিটও হয়ে থাকে। ফলে, রিজার্ভ ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত কার্যক্রমে কোনো একক বা ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত নেওয়ার কোনো অবকাশ নেই। একইভাবে রিজার্ভের বিনিয়োগ থেকে কারো পক্ষে ব্যক্তিগত কোনো অনৈতিক সুবিধা নেওয়ারও সুযোগ নেই।

উল্লিখিত নিয়মনীতি ও গাইডলাইন্সের আলোকে বাংলাদেশ ব্যাংক অত্যন্ত দক্ষতা এবং সফলতার সঙ্গে রিজার্ভ ব্যবস্থাপনার সার্বিক কার্যক্রম সম্পন্ন করে আসছে। রিজার্ভ থেকে বিনিয়োগ করা সব অর্থই মুনাফাসহ সঠিক সময়ে আদায় হয়েছে এবং হচ্ছে। বিনিয়োগের আসল বা সুদ যথাসময়ে আদায় বা ফেরত না পাওয়ার কোনো দৃষ্টান্ত বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাসে অদ্যাবধি ঘটেনি।

প্রশ্নফাঁস সংক্রান্ত জালিয়াতির বিষয়ে সম্প্রতি কতিপয় পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ অনেকাংশেই তথ্যভিত্তিক, বস্তুনিষ্ঠ এবং সঠিক নয়। প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে জড়িতদের শনাক্ত করার বিষয়ে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার ব্যাপক প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। এ ঘটনার যাতে পুনরাবৃত্তি না হয় সে ব্যাপারেও বাংলাদেশ ব্যাংক সতর্ক রয়েছে। নাম উল্লেখ না করে একজন ডেপুটি গভর্নরের বিরুদ্ধে যেসব তথ্য পরিবেশন করা হয়েছে, তা সম্পূর্ণ অসত্য ও ভিত্তিহীন।

উক্ত সংবাদ প্রকাশের পূর্বে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র থেকে যাচাই করে নেওয়ার সুযোগ ছিল। বাংলাদেশ ব্যাংক স্বচ্ছতা বিধানে সর্বদাই যত্নশীল বলেই প্রতিনিয়ত বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করে যাচ্ছেন এবং ভবিষ্যতেও এ ধারা নিরবচ্ছিন্নভাবে অব্যাহত থাকবে। অসত্য এবং বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রকাশিত হলে দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংক তথা দেশের সুনাম ও ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়ে থাকে, যা জাতীয় স্বার্থে কখনও কাম্য নয়।

৬ নভেম্বর বাংলাদেশ ব্যাংকের অধীন রাষ্ট্রায়ত্ত পাঁচটি সরকারি ব্যাংকের অফিসার (ক্যাশ) পদে সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষার আগের রাত থেকে এবং পরীক্ষার পর প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ ওঠে। এরপর মাঠে নামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

১০ নভেম্বর পর্যন্ত বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় জড়িত পাঁচজনকে গ্রেফতার করে ডিবি। যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে, তারা হলেন, মূলহোতা আহছানউল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি টেকনিশিয়ান মোক্তারুজ্জামান রয়েল (২৬), জনতা ব্যাংকের গুলশান শাখার অফিসার শামসুল হক শ্যামল (৩৪), রূপালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার জানে আলম মিলন (৩০), পূবালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান মিলন (৩৮) ও চাকরিপ্রার্থী স্বপন। পরে বুধবার রাতে আরও তিনজনকে গ্রেফতার করে ডিবি। তারা হলেন- জনতা ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার এমদাদুল হক খোকন, সোহেল রানা ও ঢাকা কলেজের সাবেক শিক্ষার্থী এবি জাহিদ।

আরও পড়ুন